চেন্নাইয়ের সহজ জয়!

স্পোর্টস ডেস্ক :: টুর্নামেন্টে ৮ বার ফাইনাল খেলা দল। ৩ বার আবার চ্যাম্পিয়ন। আইপিএলে বরাবরের ফেবারিট চেন্নাই সুপার কিংসের এবার শুরুটা হয়েছিলো ভুলে যাওয়ার মতো। প্রথম ম্যাচে দিল্লি ক্যাপিটালসের কাছে একদম উড়ে যায় (৭ উইকেটের হার) মহেন্দ্র সিং ধোনির দল।

তবে দ্বিতীয় ম্যাচেই স্বরূপে ফিরেছেন অভিজ্ঞতায় ঠাসা চেন্নাই। হারের দুঃখ তারা ভু্লেছে দাপুটে এক জয়ে।

গত শুক্রবার মুম্বাইয়ের ওয়াংখেড়ে স্টেডিয়ামে পাঞ্জাব কিংসকে ১০৬ রানেই আটকে দিয়ে ৬ উইকেট আর ২৬ বল হাতে রেখে জিতেছে ৩ বারের চ্যাম্পিয়নরা। ছোট লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে শুরুতে রিতুরাজ গাইকঁদকে (৫) হারালেও অভিজ্ঞ ফ্যাফ ডু প্লেসি আর মঈন আলির ব্যাটে সহজ জয়ের রাস্তা তৈরি হয়ে যায় চেন্নাইয়ের।

৩১ বলে ৭ চার আর ১ ছক্কায় ৪৬ রান করে মঈন যখন সাজঘরের পথে, চেন্নাইয়ের রান তখন ২ উইকেটে ৯০। এরপর এক ওভারে সুরেশ রায়না (৮) আর আম্বাতি রাইডুকে (০) ফিরিয়ে পাঞ্জাবের হারের ব্যবধান যা একটু কমিয়ে মোহাম্মদ শামি।

তবে ডু প্লেসি দলকে জয়ের বন্দরে নিয়ে তবেই থেমেছেন। ৩৩ বলে ৩ চার, এক ছক্কায় ৩৬ রানে অপরাজিত থাকেন প্রোটিয়া ব্যাটসম্যান। এর আগে চেন্নাই সুপার কিংসের ডানহাতি পেসার দীপক চাহারের বিধ্বংসী বোলিংয়ে দাঁড়াতেই পারেনি পাঞ্জাব কিংস। ধুঁকতে ধুঁকতে তারা থামে ৮ উইকেটে মাত্র ১০৬ রানে।

টস হেরে ব্যাট করতে নেমে শুরুতেই বিপদে পড়ে পাঞ্জাব। ইনিংসের প্রথম ওভারেই মায়াঙ্ক আগারওয়ালকে (০) বোল্ড করেন চাহার।

এরপর ৫ রান করে রানআউটের ফাঁদে পড়েন লোকেশ রাহুল। সেই শুরু। ইনিংসের পঞ্চম ওভারে এসে মারকুটে দু্ই বিদেশিকেকে আউট করে পাঞ্জাবের কোমড় ভেঙে দেন দীপক চাহার। ক্রিস গেইল ১০ আর নিকোলাস পুরান করেন শূন্য। এখানেই শেষ নয়।

নিজের পরের ওভারে আরও একটি উইকেট পকেটে পুরেন চাহার, এবার সাজঘরে ফেরান দীপক হুদাকে (১০)। তাতেই ৫ উইকেটে ২৬ রানে পরিণত হয় পাঞ্জাব। যার মধ্যে চারটিই চাহারের।

দীপক চাহার সর্বোচ্চ ৪ উইকেট নেন মাত্র ১৩ রান দিয়ে। ১টি করে উইকেট নেন স্যাম কারান, মঈন আলী, ডুয়াইন ব্র্যাভো।

এগুলো দেখুন

৫জন স্বনামধন্য খেলোয়াড়দের ৫টি ভাল গুণ

ওয়ানডে ক্রিকেটের নিয়ম-কানুন

জেনে নিন ওয়ানডে ক্রিকেটের নিয়ম-কানুন সম্পর্কে। আসুন এ বিষয়ে আজকে আলোচনা করে বিস্তারিত জেনে নেওয়া …

Leave a Reply

Your email address will not be published.