বর্ষাকালের ডায়েটে যে 6টি খাবার খাবেন না

বর্ষাকালের ডায়েটে যা খাবেন না বর্ষার সময়ে দেখা মেলে হঠাৎ বৃষ্টির। এ সময় মাঝে মাঝেই বৃষ্টি হওয়ার কারণে অনেক জায়গায় পানি জমে থাকতেও দেখা য়ায়। আর এটি রোগবহনকারী বিভিন্ন অণুজীবের জন্য অনুকূল পরিবেশ দিয়ে থাকে। খাদ্য সংক্রমণসহ মশাজনিত বিভিন্ন রোগ বেশি হয়ে থাকে বর্ষাকালে।

তাই বর্ষার সময়ে আপনার স্বাস্থ্যের যত্ন নিতে এবং শরীরে রোগ প্রতিরোধ ব্যবস্থাকে ভালো রাখতে কিছু ভারসাম্যপূর্ণ খাদ্যগ্রহণ করা উচিত। এ সমেয় খুব সাধারন, পুষ্টিকর এবং স্বাস্থ্যকর ডায়েট মেনে খাবার খাওয়ার মাধ্যমে নিজেকে বিভিন্ন রোগ থেকে নিরাপদ রাখতে এবং রোগে দ্রুত পুনরুদ্ধার নিশ্চিত করতে পারেন আপনিও।

আর এই কোবিড-১৯ মহামারির মধ্যে সবসময় নিজের যত্ন নেয়াটা আরো বেশি গুরুত্বপূর্ণ। তাই বর্ষায় বিভিন্ন রোগ থেকে নিরাপদ থাকতে আপনার কি খাওয়া উচিত এবং কি খাওয়া উচিত নয় সে বিষয়ে রইল কিছু টিপস-

১. বিশুদ্ধ পানি পান করা

অনেকেই সরসরি বাসার যেকোনো কল থেকে পানি পান করে থাকেন।কিন্তু অনেকেই জানেন না যে বর্ষাকালে এসব পানি খুব সহজেই জীবাণুতে পরিপূর্ণ ও দূষিত হতে পারে।আর এ পনি পান করার ফেল পেটে সংক্রমণ, ডায়রিয়া বা টাইফয়েড হতে পারে। সেজন্য বিশুদ্ধ পানি পান করতে হবে সবসময়।

২. টাটকা রান্না খাবার খেতে হবে

সবসময়েই টাটকা রান্না করা খাবার খাওয়া উচিত। আর বর্ষার সময়ে বিভিন্ন কাচা সবজি সরাসরি না খেয়ে এর পরিবর্তে সিদ্ধ, বেকড বা স্যুট করে খেতে পারেন। কারণ বর্ষার সময়ে বিভিন্ন সবজিতে ময়লা থাকার কারণে এতে প্রচুর পরিমাণে জীবাণু থাকতে পারে। এটি আপনার গ্যাস্ট্রোইনটেস্টাইনাল সমস্যাগুলির কারণ হতে পারে।এ ছাড়া এই মৌসুমে সামুদ্রিক খাবারও এড়ানো উচিত।

৩. মশলাদার এবং তৈলাক্ত খাবার পরিহার করা

অনেকেই বৃষ্টির সময়ে পাকোড়া এবং সামোচা জাতীয় খাবারগুলো খেয়ে থাকেন। কিন্তু এসব খাবার আমাদের বিপাককে আরও ধীর করে দেয়। এজন্য এগুলো আমাদের পেটের জন্য ও স্বাস্থের জন্য অনেক ক্ষিতকারক হিসেবে কাজ করে।তাই বর্ষার সময়ে বেশি মশলাদার এবং তৈলাক্ত খাবার পরিহার করা উচিত।

৪. কিছু সবুজ শাক ও সবজি এড়ানো

পুষ্টির চাহিদা পূরনে সবসময় সবুজ শাক খাওয়ার পরামর্শ দেয়া হয়ে থাকে। কিন্তু বর্ষাকালে না খাওয়াই উত্তম। এ শাকগুলোর পাতায় আর্দ্রতা থাকার কারণে এটি সহজেই আপনার পেট খারাপের কারণ হতে পারে। এ ছাড়া বর্ষাকালে আবহাওয়া আর্দ্রতা থাকার কারণে এসব শাক জীবাণুর জন্য উপযুক্ত প্রজনন ক্ষেত্র হয়ে থাকে। তাই বর্ষাতে পালং শাক, বাঁধাকপি এবং ফুলকপির মতো খাবারগুলি এড়ানো ভাল।

৫. মসলা চা ও পানীয় খাওয়া

বর্ষার সময়ে আর্দ্রতা এবং ঘামের কারণে আমাদের দেহ থেকে প্রচুর তরল বের হয়ে যায়। তা্ই শরীরে তরলের ঘাটতি পূরণের জন্য অবশ্যই প্রচুর পরিমাণে পানিয়, তরল খাবার এবং মশলা চা খেতে পারেন। এক্ষেত্রে তুলসী, আদা, এলাচ জাতীয় মশলা দিয়ে তৈরি বিভিন্ন পনীয় অথবা চা খেলে সেটি আপনার প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে এবং সব ধরণের সংক্রমণ রোধ করতে উপকারী হতে পারে।


আরো পড়ুন: গর্ভাবস্থায় খাওয়ার জন্য যেসব সেরা ফল


৬. মশলা

কিছু মশলা রয়েছে যেগুলো এন্টিসেপটিক এবং অ্যান্টি-ইনফ্ল্যামেটরি বৈশিষ্ট্যযুক্ত হয়এ থাকে। তাই আপনার প্রতিদিনের খাবারে হলুদ, কালো মরিচ এবং লবঙ্গের মতো মসলাগুলো রাখুন। এগুলো আপনাকে বিভিন্ন সংক্রমণ থেকে রক্ষা করার পাসাপাশি ঠান্ডা এবং ফ্লুর মতো সমস্যা কমাতেও সাহায্য করবে।

যুক্ত হোন আমাদের ইউটিউব চ্যানেলে এখানে ক্লিক করুন।

এগুলো দেখুন

ইফতারে তিন পানীয় প্রাণ জুড়াবে

ইফতারে তিন পানীয় প্রাণ জুড়াবে

ইফতারে তিন পানীয় প্রাণ জুড়াবে । জেনে নিন কিভাবে তৈরি করবেন এই তিন পানীয়। ইফতারে …

Leave a Reply

Your email address will not be published.