সেরা ৮ টি এ্যাড নেটওয়ার্ক

সেরা ৮ টি এ্যাড নেটওয়ার্ক দুর্বা ডেস্ক :: আপনি যদি একজন ব্লগার হয়ে থাকেন, তাহলে আপনি জানেন যে এ্যাড নেটওয়ার্ক আপনার জন্য কতটা গুরুত্বপূর্ণ। গুগল এ্যাডসেন্স এবং ইনস্ট্যান্ট আর্টিকেলসহ অনেক ভালো ভালো এ্যাড নেটওয়ার্ক আছে, যা আপনি আপনার ওয়েবসাইটে প্রয়োগ করতে পারেন। কিন্তু একটি বিষয় খুব ভালোভাবে পর্যবেক্ষণ করতে হবে, আর তা হচ্ছে কোন এ্যাড নেটওয়ার্ক আপনার ওয়েবসাইটের জন্য সবচেয়ে বেশি পারফেক্ট।

ব্লগিং করে অর্থ উপার্জনের অনেকগুলো উপায় আছে। আপনার ব্লগে বিজ্ঞাপন প্রদর্শন করে আপনি বেশ ভালো পরিমাণ অর্থ উপার্জ করতে সক্ষম। আজ আমরা বাংলাদেশের পাবলিশারদের জন্য এমন ১০ টি সেরা এ্যাড নেটওয়ার্ক সম্পর্কে কথা বলতে যাচ্ছি যারা অর্থ পরিশোধ এবং ব্যবহারের সহজতার ক্ষেত্রে দুর্দান্ত।

এ সকল এ্যাড নেটওয়ার্ক আপনার ওয়েবসাইটের ভিজিটরদের অভিজ্ঞতাকে বাধাগ্রস্ত না করেই আপনাকে উপার্জনের সুযোগ করে দেবে। আপনার শুধু প্রয়োজন এই ১০ টি দুর্দান্ত এ্যাড নেটওয়ার্কের মধ্য থেকে যেকােন একটি পারফেক্ট প্লাটফর্ম বেছে নেয়া, যা আপনাকে ভালো রেভিনিউ এনে দেবে। তাহলে চলুন, শুরু করি।

১. গুগল এ্যাডসেন্স

এ্যাডসেন্স হচ্ছে বর্তমান বিশ্বে সবচেয়ে বেশি প্রচলিত বেস্ট এ্যাড নেটওয়ার্ক, যা প্রায় অধিকাংশ ব্লগারই ব্যবহার করে থাকে। এ্যাডসেন্স মূলত সিপিসি নির্ভর বিজ্ঞাপন সরবারহ করে থাকে। যা তাদের অন্যদের মধ্যে সেরা করে তুলেছে। একজন পাবলিশার বিভিন্ন মাধ্যমে গুগল এ্যাডসেন্স ব্যবহার করে উপার্জন করতে সক্ষম।

যদি আপনি আপনার ইউটিউব চ্যানেল, এ্যাপ কিংবা ওয়েবসাইটটি এ্যাডসেন্স এর মাধ্যমে মনিটাইজ করতে চান, তাহলে আপনাকে গুগলের সব কঠোর গাইডলাইন এবং নীতিমালা মেনে চলার জন্য প্রস্তুত থাকতে হবে। সবকিছু ঠিকঠাক থাকলে আপনার কনটেন্টে গুগল তাদের কোয়ালিটি সম্পন্ন বিজ্ঞাপন প্রদর্শন শুরু করবে, যা আপনাকে বেশ ভালো পরিমাণে রেভিনিউ এনে দেব।

যদিও এ্যাডসেন্স এ্যাপ্রুভ পাওয়া এখনকার সময়ে সত্যিই খুব কঠিন, কিন্তু একবার এ্যাপ্রুভাল পেয়ে গেলে আপনি এর সব সুবিধা ভোগ করতে থাকবেন। এ্যাডসেন্সে আপনার এ্যাকাউন্টে যদি অন্তত ১০০ ডলার থাকে, তাহলেই আপনি তা উত্তোলন করতে পারবেন। আর আপনার ওয়েবসাইটে যদি ভালো কনটেন্ট এবং ট্রাফিক থাকে, তাহলে মাসে ১০০ ডলার ইনকাম খুব কঠিন কিছুই না। এ্যাডসেন্সের পেমেন্ট মেথড যথাক্রমে ইলেট্রনিক তহবিল স্হানান্তর, ওয়েস্টার্ন ইউনিয়ন মানি ট্রান্সফার এবং ব্যাংক ট্রান্সফার।

২. ফেসবুক ইনস্ট্যান্ট আর্টিকেল

ওয়েবসাইটের ধীরগতিতে পেজ লোডিং সমস্যাকে চিরতরে দূর করে দিতে ফেসবুক নিয়ে এসেছে নতুন একটি এ্যাড নেটওয়ার্ক, যার নাম ফেসবুক ইনস্ট্যান্ট আর্টিকেল। এটি এমন একটি ভিন্নধর্মী এ্যাড নেটওয়ার্ক যা ব্যবহারের ফলে আপনার ওয়েবসাইটে প্রকাশিত কোন পোস্ট বা আর্টিকেল পড়ার জন্য কোন পাঠককে ওয়েবসাইটে ঢুকতে হবে না। আপনি যখন আপনার ওয়েবসাইটের আর্টিকেলগুলো ফেসবুকে শেয়ার করবেন, তখন কেউ যদি ওই লিংকে ক্লিক করে, তাহলে সে ফেসবুকে থাকা অবস্থাতেই সম্পূর্ণ আর্টিকেলটি পড়তে পারবে।আর্টিকেল মাঝে মাঝে ফেসবুক বিভিন্ন এ্যাড শো করাবে, যার দ্বারাই মূলত আপনার ইনকাম হবে।

বর্তমানে বিশ্বের বড় বড় সংবাদমাধ্যম এ্যাডসেন্স বাদ দিয়ে ফেসবুকের ইনস্ট্যান্ট আর্টিকেল এ্যাড নেটওয়ার্কের সাথে যুক্ত হয়েছে। আমেরিকার জনপ্রিয় নিউজপোর্টাল নিউইয়র্ক টাইমস, বাজফিড, ন্যাশনাল জিওগ্রাফিক এই তালিকায় প্রথমে অবস্থান করছে।

বিজ্ঞাপন থেকে ইনকামের পাশাপাশি পাঠকদের কাছে ওয়েবসাইটের লোডিং স্পীড বাড়াতে ওয়াশিংটন পোস্ট, হাফিংটন পোস্ট, দ্য ইনডিপেনডেন্ট, ইন্ডিয়া টুডের মতো জনপ্রিয় গণমাধ্যমগুলোও এখন ফেসবুক ইনস্ট্যান্ট আর্টিকেলের সাথে একাত্ম হয়েছে। তবে হ্যাঁ, ফেসবুক ইনস্ট্যান্ট আর্টিকেল শুধু স্মার্টফোন ব্যবহারকারীরাই দেখতে পারবেন। এটি ডেস্কটপ ব্যবহারকারীদের জন্য এখনেও চালু হয়নি। ফেসবুক ইনস্ট্যান্ট আর্টিকেলে আয়ের টাকা ১০০ ডলার হলেই তা আপনার ব্যাংক অ্যাকাউন্টে চলে আসবে । ফেসবুক ইনস্ট্যান্ট আর্টিকেল পেপাল এবং ব্যাংক ট্রান্সফারের মাধ্যমে পেমেন্ট করে থাকে।

৩. মিডিয়া ডট নেট

নতুন এবং সুপ্রতিষ্ঠিত লেখক বা ব্লগারদের জন্য আরেকটি ভালো মানের এ্যাড নেটওয়ার্ক সার্ভিস হচ্ছে মিডিয়া। মিডিয়া ডট নেট প্রধানত কনটেক্সটচুয়াল বিজ্ঞাপন নিয়ে কাজ করে থাকে যা সিপিএ, সিপিএম, এবং সিপিসি প্রোগ্রামের ভিত্তিতে পরিচালিত হয়।

মিডিয়া ডট নেট বিংন এবং ইয়াহু কর্তৃক পরিচালিত একটি প্রতিষ্ঠান। এর ফলে আপনি তাদের গুণগত মানসম্পন্ন বিজ্ঞাপন ওয়েবসাইটে প্রদর্শন করতে পারেন। এই এ্যাড নেটওয়ার্কের সবথেকে ভালো গুণ হচ্ছে এটি অন্যান্য এ্যাড নেটওয়ার্কের থেকে আলাদা বৈশিষ্টের বিজ্ঞাপন তৈরি করে থাকে। যা একটি ওয়েবসাইটের রঙ, ডিজাইন এবং অন্যান্য উপকরণের সাথে হুবহু মিলে যায়।

এর ফলে বিজ্ঞাপনে ক্লিক করা বা ভিজিট হওয়ার সম্ভাবনা বাড়ে। আর ক্লিক বাড়লে আপনার ইনকামও যে বাড়বে, তা আর বলার অপেক্ষা রাখে না। পাশপাশি মিডিয়া ডট নেটে কোন ট্রাফিক টার্গেট নেই। এর ফলে আপনার ওয়েবসাইটের ট্রাফিক যদি কমও হয়, আপনি সেখানে এপ্লাই করতে পারবেন। এ্যাডসেন্সের মতো মিডিয়া ডট নেটও ১০০ ডলারের সর্বনিম্ন উইথড্রো লিমিট রাখে। মিডিয়া ডট নেট সাধারণত পেপাল এবং ওয়েব মানি এর মাধ্যমে পাবলিশারদের পেমেন্ট দেয়।

৪. প্রোপেলার এ্যাড

তাৎক্ষণিক এ্যাপ্রুভাল পাওয়ার জন্য প্রোপেলার এ্যাড এর জননপ্রিয়তা আকাশচুম্বি। হ্যাঁ! প্রোপেলার এ্যাড এ সাবমিট দিলে আপনি সাথে সাথেই এ্যাপ্রুভাল পেয়ে যেতে পারেন। পাশাপাশি এদের ফার্স্ট পেমেন্টের জন্য অনেকেই চৎড়ঢ়বষষবৎ অফং কে পছন্দের তালিকায় শীর্ষে রাখেন।

প্রোপেলার এ্যাড নেটওয়ার্ক সার্ভিসটি সবচেয়ে ওই সমস্ত ব্লগাররা বেশি পছন্দ করে থাকে, যারা মূলত প্রযুক্তি বিষয়ক কনটেন্ট তৈরি করে থাকে। যেমন ধরুন, আপনি যদি মোবাইল, কম্পিউটার, সোশ্যাল মিডিয়া, সফটওয়্যার বা গেমস নিয়ে কনটেন্ট লিখতে পছন্দ করেন, তাহলে আপনি প্রোপেলার কে বেছে নিতে পারেন। প্রোপেলার এ্যাড এ আপনি ১০০ ডলার হলে উইথড্রো দিতে পারবেন। তবে ব্যাংক ট্রান্সফারের ক্ষেত্রে কমপক্ষে ৫৫০ ডলার প্রযোজ্য।

৫. ইনফোলিংকস

ইনফোলিংকস হচ্ছে বিশ্বব্যাপী পরিচিত একটি এ্যাড নেটওয়ার্ক যা পাবলিশাল এবং বিজ্ঞাপনদাতাদের উভয়ের জন্য বিজ্ঞাপন সমাধান সরবরাহ করে। ইনফোলিংকস বিভিন্ন এ্যাড ইউনিট যেমন ইনফোউড, ইনট্যাগ, হসটেক্স, ইনফ্রেম এবং ইনআর্টিকেল অনুযায়ী বিজ্ঞাপন প্রদর্শন করে। এটি টেক্সট এবং লিংকের সমন্বয়ে কাজ করে এবং ওয়েবসাইটের মধ্যে পণ্যের লিংক, কিওয়ার্ড বা ট্যাগ প্রদর্শন করে।

ব্যানার এ্যাড অনেক জনপ্রিয় হলেও এর কিছু সমস্যা রয়েছে।অনেক সচেতন ব্যবহারকারীই ব্যানার এ্যাডকে উপেক্ষা করে এবং এড়িয়ে চলে। ইনফোলিংকস এই সমস্যাটির গুরুত্ব অনুধাপন করে নতুন এক বিজ্ঞাপন পদ্ধতি চালু করে, যা মূলত কোন ছবি বা ব্যানার নয়। বরং লিংক প্রদর্শনের মাধ্যমে পণ্যের প্রচার করার একটি উপায়।

ইনফোলিংকস বর্তমানে এতটাই জনপ্রিয় যে ইবায় , ফেসবুক, এ্যামাজন এবং মাইক্রোসফটের মতো প্রতিষ্ঠানগুলো তাদের সার্ভিস প্রচারণার ক্ষেত্রে এটি ব্যবহার করে থাকে। জনপ্রিয় এই এ্যাডনেটওয়ার্কে আপনার এ্যাকাউন্টে মাত্র ৫০ ডলার থাকলেই আপনি তা উত্তোলনের ব্যবস্থা করতে পারবেন।

৬. রেভিনিউহিটস

প্রতিদিন ১০-১০০ ডলার উপার্জনের একটি দুর্দান্ত মাধ্যম হচ্ছে রেভিনিউহিটস। এটি একটি সিপিএ নির্ভর এ্যাড নেটওয়ার্কিং সিস্টেম যা পাবলিশারদের প্রতিটি কাজ সম্পন্ন করার সাথে সাথেই পেমেন্ট জমা করে দেয়। প্রায় প্রতিটি কাজের জন্য এখানে ১০-১০০ ডলার পেমেন্ট করা হয়। রেভিনিউহিটস অন্য নেটওয়ার্কগুলোর তুলনায় কোনও ক্লিক বা ইমপ্রেশনের ওপর ভিত্তি করে অর্থ প্রদান করে না তবে খুব উচ্চমানের সিপিএ হার দেয়।

গুগল এ্যাডসেন্সের মতো রেভিনিউহিটস এ এ্যাড ফরমেটের ভিন্নতা রয়েছে, যা একজন এডমিন তার ওয়েবসাইটে প্রয়োগ করতে পারে। এটি তাৎক্ষণিক এ্যাপ্রুভাল দিয়ে থাকে, ফলে ওয়েবসাইটের ট্রাফিক কম না বেশি তা নিয়ে দুঃশ্চিন্তা করতে হয় না।  এ সর্বনিম্ন ৫০ ডলার উইথড্রো করা যায়।

৭. মজিদ

আপনার ওয়েবসাইটে যদি ভালো রকমের ট্রাফিক থাকে তাহলে আপনি গএওউ ট্রাই করতে পারেন। মজিদ সাধারণত নিয়মিত ৩০০০ ইউনিক ভিজিটর আসে, এমন ওয়েবসাইটকে মনিটাইজ করে থাকে। অন্যান্য এ্যাড নেটওয়ার্কের মতো মজিদ ও কনটেক্টচুয়াল এ্যাড সার্ভ করে থাকে। তবে তাদের বিজ্ঞাপনের ধরনটা ভিন্ন।

মজিদ ন্যাটিভ বিজ্ঞাপন প্রদর্শনের জন্য সেরা একটি প্লাটফরম। এখন নিশ্চই প্রশ্ন জাগে, ন্যাটিভ এ্যাড কি? ন্যাটিভ এ্যাড হচ্ছে বিজ্ঞাপন প্রদর্শনের এমন এক কৌশল, যার আপনার ওয়েবাসাইটের ডিজাইন এবং কনটেন্টের সাথে মিল রেখে তৈরি করা হয়। অর্থাৎ, আপনার ওয়েবসাইটের কনটেন্টের স্টাইল যেমন হবে, ন্যাটিভ এ্যাডের ডিজাইনও ঠিক তেমন হবে।

ন্যাটিভ এ্যাডের বড় সুবিধা হচ্ছে এতে ক্লিক পড়ার সম্ভাবনা অন্য সকল এ্যাডের থেকে বেশি। এ ধরনের এ্যাড সাইটের কনটেন্টের সাথে মিল থাকায় অনেকেই এগুলোকে মূল কনটেন্ট ভেবে ক্লিক করে থাকেন। আর এ জন্যই পাবলিশারদের কাছে ন্যাটিভ এ্যাড বর্তমানে বেশ জনপ্রিয়তা লাভ করছে।

আপনার ওয়েবসাইটে দৈনিক ৩০০০ হাজার এবং মাসিক ৯০,০০০ হাজার ইউনিক ট্রাফিক থাকলে আপনি মজিদ এ ট্রাই করতে পারবেন। মজিদ পাবলিশারদের ২৪ ঘণ্টার মধ্যে পেমেন্ট নিশ্চিত করে। আপনার একাউন্টে ১০০ ডলার হলেই তা উত্তোলন করা সুযোগ পাবেন। আপনি মজিদ থেকে পেপালের মাধ্যমে টাকা তুলতে পারবেন। অথবা চাইলে ব্যাংক ট্রান্সফার করতে পারবেন। তবে ব্যাংক ট্রান্সফারের ক্ষেত্রে সর্ব নিম্ন ১০০০ ডলার হতে হবে।

৮. পোপাডস

ছোট এবং নতুন পাবলিশারদের জন্য পোপাডস দুর্দান্ত এক বিজ্ঞাপন নেটওয়ার্ক। এটি একটি প্রিমিয়াম এ্যাড নেটওয়ার্ক সার্ভিস। এখানে আপনি এপ্লাই করার সাথে সাথেই এ্যাপ্রুভাল পেয়ে যাবেন। পোপাডস অন্যান্য বিজ্ঞাপন নেটওয়ার্কের চেয়ে ভাল সিপিএম রেট প্রদান করে এবং এখানে কোনো ন্যূনতম ট্র্যাফিকের প্রয়োজনীয়তা নেই। এর ফলে আপনার ওয়েবসাইটের ভিজিটর যতই হোক না কেন, আপনি এ্যাপ্রুভাল পাবেন।

পোপাডস শুধু ব্লগ বা কনটেন্ট ভিত্তিক ওয়েবসাইটই নয়, যেকোন ধরনের ওয়েবসাইট সাপোর্ট করে। আপনি মাত্র ৫ ডলার হলেই পোপাডস থেকে টাকা উইথড্রো করতে পারবেন।


আরো পড়ুন: গর্বকালীন গোপনাঙ্গের যত্ন নেওয়ার ৯টি গোপন কথা


আপনি যদি ওয়ার্ডপ্রেস এবং ব্লাগার ব্যবহার করে থাকেন, তাহলে উপরে উল্লেখিত ৮ টি এ্যাড নেটওয়ার্ক আপনার জন্য সেরা হতে পারে। নতুন এবং প্রতিষ্ঠিত পাবলিশারদের জন্য এগুলো সত্যিই বেশ কার্যকরী। এ সকল এ্যাড নেটওয়ার্ক বিশ্বস্ত বিজ্ঞাপন বিতরণ করে এবং সময় মতো পেমেন্ট প্রদান করে, যাতে বিশ্বজুড়ে পাবলিশাররা তাদের বিজ্ঞাপনগুলির মাধ্যমে উপার্জন করতে পারেন।

এই এ্যাড নেটওয়ার্কগুলো বিজ্ঞাপনের ডিজাইন থেকে শুরু করে ওয়েবসাইটে প্রদর্শনের ক্ষেত্রেও চমৎকার উপযোগি। যার ফলে আপনার ওয়েবসাইটের থিম, লে-আউট বা গঠন যেমনই হোক না কেন, বিজ্ঞাপন প্রকাশের পরে আপনার ওয়েবসাইটটি দেখতে সুন্দর লাগবে। সুতরাং এখন আপনার প্রয়োজন এই ৮ টি দুর্দান্ত এ্যাড নেটওয়ার্কের মধ্য থেকে যেকােন একটি পারফেক্ট প্লাটফর্ম বেছে নেয়া, যা আপনাকে ভালো রেভিনিউ এনে দেবে।

যুক্ত হোন আমাদের ইউটিউব চ্যানেলে এখানে ক্লিক করুন।

এগুলো দেখুন

যেভাবে ফেসবুক থেকে আয় করবেন

ফেসবুক ব্যবহারে মিলবে ৫০ হাজার ডলার

ফেসবুকের ‘লাইভ অডিও রুমস’ ব্যবহারের জন্য কনটেন্ট নির্মাতাদের ৫০ হাজার ডলার পর্যন্ত দেবে মেটা। পাশাপাশি …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *