(ফ্রি পিডিএফ) SSC আত্মকর্মসংস্থানের সৃজনশীল প্রশ্নের উত্তর

(ফ্রি পিডিএফ) SSC আত্মকর্মসংস্থানের সৃজনশীল প্রশ্নের উত্তর

সৃজনশীল প্রশ্ন
ইসলাম এস.এস.সি পাস করার পর একটি কোম্পানিতে চাকরি নেয়। কঠোর পরিশ্রম ও স্বল্প বেতন হওয়ায় সে চাকরি ছেড়ে দিতে বাধ্য হয়। উচ্চতর শিক্ষাগত যোগ্যতা না থাকায় চাকরি পেতে ব্যর্থ হয়। গ্রামে ফিরে উপজেলা কৃষি অফিসারের পরামর্শে বাড়ির আশপাশে পতিত জমিতে সবজি চাষ শুরু করে। সবজি আবাদ করে সে বেকারত্ব ঘুচিয়ে স্বাবলম্বী হয়েছে।

ক. মজুরি বা বেতনভিত্তিক কর্মসংস্থান কী?
খ. আমাদের দেশের যুব মহিলাদের উপযোগী আত্মকর্মসংস্থানের কয়েকটি ক্ষেত্র চিহ্নিত কর।

গ. ইসলাম নিজেকে কোন পেশায় নিয়োজিত করেছে? বর্ণনা কর।
ঘ. বেকারত্ব ঘোচানোর জন্য ইসলামের সিদ্ধান্তের যৌক্তিকতা মূল্যায়ন কর।

সৃজনশীল প্রশ্নের উত্তর
ক. কোনো প্রতিষ্ঠানে নির্দিষ্ট পরিমাণ বেতন এবং আনুষঙ্গিক সুযোগ সুবিধার বিনিময়ে চাকরি করাই হলো মজুরি বা বেতনভিত্তিক কর্মসংস্থান।
খ. আত্মকর্মসংস্থানের ক্ষেত্রে একজন ব্যক্তি নিজের কর্মসংস্থানের চিন্তা করে কাজে হাত দেন। আমাদের দেশের যুব মহিলাদের উপযোগী আত্মকর্মসংস্থানের কয়েকটি ক্ষেত্র হলো হস্তচালিত তাঁত, টেইলারিং, মাদুর বা ম্যাট তৈরি, এমব্রয়ডারি, পিঠা তৈরি, বেতের সামগ্রী তৈরি, সুতা কাটা, মোমের দ্রব্যাদি তৈরি, গৃহস্থালির দ্রব্যাদি তৈরি ইত্যাদি।

গ. ইসলাম নিজেকে আত্মকর্মসংস্থানমূলক পেশায় নিয়োজিত করেছে।
নিজের দক্ষতা ও গুণাবলির দ্বারা নিজেই নিজের কর্মসংস্থান করাকে আত্মকর্মসংস্থান বলে। অর্থাৎ নিজস্ব অথবা ঋণ করা স্বল্প সম্পদ, নিজস্ব চিন্তা, জ্ঞান, বুদ্ধিমত্তা ও দক্ষতাকে কাজে লাগিয়ে নূন্যতম ঝুঁকি নিয়ে আত্মপ্রচেষ্টায় জীবিকা অর্জনের ব্যবস্থাকে আত্মকর্মসংস্থান বলে।

উদ্দীপকে ইসলাম যে চাকরি করতো তা কঠোর পরিশ্রম ও স্বল্প বেতন হওয়ায় চাকরি ছেড়ে দিয়ে গ্রামে ফিরে আসে। ইসলাম উপজেলা কৃষি অফিসারের পরামর্শে বাড়ির আশপাশে পতিত জমিতে সবজি চাষ শুরু করে। সবজি চাষ করে সে বেকারত্ব ঘুচিয়ে স্বাবলম্বী হয়। অর্থাৎ ইসলাম নিজেই নিজের কর্মসংস্থান করে। তাই ইসলামের পেশাটি আত্মকর্মসংস্থানের পর্যায় পড়ে।

ঘ. বেকারত্ব ঘোচানোর জন্য ইসলামের সিদ্ধান্তটি যথোপযুক্ত এবং যুযোপযোগী। আমাদের দেশের প্রধান সমস্যাগুলোর একটি হলো বেকারত্ব। চাকরির সুযোগের তুলনায় চাকরির প্রার্থীর সংখ্যা বেশি থাকায় বাংলাদেশে বেকারত্বের হার বেশি। দেশের সীমিত সম্পদ কাজে লাগিয়ে সকল বেকারের জন্য চাকরির সুযোগ তৈরি করা সম্ভব নয়।

তাই এদেশে বেকারত্বের সমস্যা দিন দিন প্রকট আকার ধারণ করছে। এ সমস্যা দূরীকরণের একমাত্র পথ হলো আত্মকর্মসংস্থান। এটি একটি স্বাধীন পেশা। যেকোনো ব্যক্তি যেকোনো সময় নিজস্ব স্বল্প পুঁজি, চিন্তা, জ্ঞান, দক্ষতাকে কাজে লাগিয়ে এরূপ পেশায় নিজেকে নিয়োজিত করতে পারে।

উদ্দীপকে ইসলাম উচ্চতর শিক্ষাগত যোগ্যতা না থাকায় চাকরি না পেয়ে গ্রামে ফিরে আসে। গ্রামে ফিরে উপজেলা কৃষি অফিসারের পরামর্শে বাড়ির আশপাশে পতিত জমিতে সবজি চাষ করে বেকারত্ব ঘুচিয়ে স্বাবলম্বী হয়েছে। এর জন্য প্রয়োজন হয়েছে সামান্য পরিমাণে পুঁজি, নিজস্ব চিন্তা, জ্ঞান, বুদ্ধিমত্তা ও দক্ষতা।
সুতরাং বলা যায়, বেকারত্ব ঘোচাতে ইসলামের সিদ্ধান্তটি যথোপযুক্ত এবং যুগোপযোগী।

সৃজনশীল প্রশ্ন
চাঁদপুরের জেলা প্রশাসক কিছু সংখ্যক বেকার যুবকদের নিয়ে একটি সেমিনারের আয়োজন করেন। সেমিনারে তিনি আত্মকর্মসংস্থানমূলক কাজের ওপর আলোচনা করেন। তিনি চাকুরির বিকল্প পেশা হিসেবে আত্মকর্মসংস্থানের গুরুত্ব ব্যাখ্যা করেন এবং এই পেশায় নিয়োজিত হতে সবাইকে উৎসাহ প্রদান করেন।

ক. কর্মসংস্থান কী?
খ. আত্মকর্মসংস্থানমূলক পেশা লাভজনক ও সম্মানজনক কেন?

গ. জেলা প্রশাসক কোন কারণে বেকার যুবকদের আত্মকর্মসংস্থানে উৎসাহ দেন? বর্ণনা কর।
ঘ. জেলা প্রশাসকের পরামর্শটি বেকার যুবকদের গ্রহণ করা উচিত কি না? মতামত দাও।

সৃজনশীল প্রশ্নের উত্তর
ক. জীবিকা অর্জনের জন্য কোনো কাজে নিয়োজিত থেকে অর্থ উপার্জন করাই হলো কর্মসংস্থান।
খ. আত্মকর্মসংস্থানমূলক পেশা স্বল্প মূলধন নিয়ে শুরু করা যায় এবং এতে ঝুঁকি কম থাকে।

ফলে অধিক মুনাফা বা আয়ের সুযোগ থাকে। অপরদিকে শিক্ষিত, অশিক্ষিত এবং বেকার যুবকের কর্মসংস্থানের সৃষ্টি হয়। বেকারত্বের অভিশাপ থেকে তারা মুক্ত হতে পারে। তাই আত্মকর্মসংস্থান একটি লাভজনক ও সম্মানজনক পেশা।

গ. চাঁদপুর জেলার জেলা প্রশাসক বেকারত্ব দূর করার জন্য বেকার যুবকদের আত্মকর্মসংস্থানের উৎসাহ দেন।
নিজেই নিজের কর্মসংস্থান করাই হলো আত্মকর্মসংস্থান। আত্মকর্মসংস্থান সম্মানজনক জীবিকা উপার্জনের একটি প্রক্রিয়া।

এটি স্বল্প মূলধন নিয়ে শুরু করা যায় এবং ঝুঁকি কম থাকে। উদ্দীপকে চাঁদপুরের জেলা প্রশাসক কিছু সংখ্যক বেকার যুবকদের নিয়ে একটি সেমিনারের আয়োজন করেন। কারণ দেশ ও জাতির প্রাণশক্তি যুবক-যুবতীরা বেকারত্বের কষাঘাতে জর্জরিত। অনেক বেকার যুবক-যুবতী বেকারত্বের অভিশাপে হতাশ হয়ে নানা অপরাধে জড়িয়ে পড়েছে।

আত্মকর্মসংস্থানের মাধ্যমে যুবক-যুবতীরা কাজে মনোনিবেশ করতে পারলে বেকারত্ব লাঘবের সাথে সাথে ব্যবসায় বাণিজ্যের যেমন উন্নতি হবে তেমনি তাদের মধ্যে নানা রকম অপরাধ প্রবণতা কমে আসবে। যার ফলে সমাজের মানুষের জীবনযাত্রার মান উন্নয়ন তথা দেশ ও জাতির উন্নয়ন সাধিত হবে। এ কারণেই জেলা প্রশাসক বেকার যুবকদের আত্মকর্মসংস্থানের উৎসাহ দেন।

ঘ. নিজের এবং দেশের উন্নতির স্বার্থে জেলা প্রশাসকের পরামর্শ বেকার যুবকদের গ্রহণ করা উচিত।
কর্মসংস্থানের বিকল্প উৎস হিসেবে ব্যবসায় ও শিল্প প্রতিষ্ঠান স্থাপনের মাধ্যমে আত্মকর্মসংস্থানের গুরুত্ব দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। এ খাতে নতুন কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টির সম্ভাবনা অত্যন্ত উজ্জ্বল।

তাছাড়া অনেক সময় আত্মকর্মসংস্থানের মাধ্যমে চাকরির চেয়ে বেশি পরিমাণ উপার্জন করা যায়। বেকার যুবকরা আত্মকর্মসংস্থানের মাধ্যমে অর্থ উপার্জন করে নিজের মর্যাদা বৃদ্ধি এবং সামাজিক কল্যাণ সাধন করতে পারে। আত্মকর্মসংস্থানে মনোনিবেশ করলে তাদের মধ্যে অপরাধ করার প্রবণতা কমে আসবে।

তারা নিজের দক্ষতা বৃদ্ধি করে ব্যবসায়-বাণিজ্য সম্প্রসারণের প্রচেষ্টা চালাবে। এমনকি আত্মকর্মসংস্থানের মাধ্যমে স্থানীয় কাঁচামাল ব্যবহার করে ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প স্থাপনের মাধ্যমে গ্রামীণ অর্থনৈতিক অবস্থার উন্নয়ন সাধন করা যায়।

এর ফলে শহরমুখী জনস্রোত রোধ করা যায়। এছাড়া আত্মকর্মসংস্থান যুবসমাজকে দেশপ্রেমে উদ্বুদ্ধ করে স্বেচ্ছামূলক কাজে উৎসাহিত করে। ফলে দেশ ও জাতি পায় কর্মচঞ্চল যুবসমাজ।

এসব কারণেই চাঁদপুরের জেলা প্রশাসক সেমিনারে বেকার যুবকদের চাকরির বিকল্প পেশা হিসেবে আত্মকর্মসংস্থানের পরামর্শ দেন। সুতরাং বলা যায়, দেশ ও জাতির উন্নয়নে বেকার যুবকদের জেলা প্রশাসকের পরামর্শটি গ্রহণ করা উচিত।

সৃজনশীল প্রশ্ন
জনাব ইমতিয়াজ সামান্য পুঁজি নিয়ে নিজ গ্রামে মুরগির খামার গড়ে তোলেন। পাশাপাশি একটি সবজির বাগান করে সেখান থেকেও কিছু আয়ের ব্যবস্থা করেন। তিনি বর্তমান চাকরি সংকটে চাকরির জন্য বসে না থেকে নিজেই নিজের কর্মসংস্থান গড়ে তুলে বেকারত্বের হাত থেকে মুক্ত পেয়েছেন।

ক. জাতীয় অর্থনীতিতে সেবা খাতের অবদান শতকরা কত ভাগ?
খ. চাকরির বিকল্প হিসেবে আত্মকর্মসংস্থানের জনপ্রিয়তা অর্জনের কারণ বর্ণনা কর।

গ. জনাব ইমতিয়াজের মুরগির খামার ও সবজি চাষ কী ধরনের কাজ? বর্ণনা কর।
ঘ. জনাব ইমতিয়াজের আত্মকর্মসংস্থানকে পেশা হিসেবে নেওয়ার সিদ্ধান্ত কী সঠিক ছিল? তোমার উত্তরের সপক্ষে যুক্তি দাও।

সৃজনশীল প্রশ্নের উত্তর
ক. জাতীয় অর্থনীতিতে সেবা খাতের অবদান শতকরা ৫০ ভাগ।
খ. চাকরি হলো পরাধীন পেশা। এক্ষেত্রে অন্যের অধীনে কাজ করতে হয়। অপরদিকে আত্মকর্মসংস্থান স্বাধীন পেশা। এক্ষেত্রে ব্যক্তিকে করো কাছে জবাবদিহি করতে হয় না।

শিক্ষিত, অশিক্ষিত, বেকার যুবকরা স্বল্প পুঁজি নিয়ে সম্মানের সাথে নিজের কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করে বেকারত্বের অভিশাপ থেকে মুক্ত হতে পার। তাছাড়া অনেক সময় আত্মকর্মসংস্থানের মাধ্যমে চাকরির চেয়ে বেশি পরিমাণ উপার্জন করা যায়। তাই চাকরির বিকল্প হিসেবে আত্মকর্মসংস্থান জনপ্রিয়।

গ. জনাব ইমতিয়াজের মুরগির খামার ও সবজি চাষ একটি আত্মর্কসংস্থানমূলক কাজ।
আত্মকর্মসংস্থান বলতে সাধারণত নিজেই নিজের কর্মসংস্থান করাকে বোঝায়। অর্থাৎ নিজস্ব পুঁজি অথবা ঋণ করা স্বল্প সম্পদ,

নিজস্ব চিন্তা, জ্ঞান, বুদ্ধিমত্তা ও দক্ষতাকে কাজে লাগিয়ে ন্যূনতম ঝুঁকি নিয়ে আত্মপ্রচেষ্টায় জীবিকা অর্জনের এক প্রকার ব্যবস্থা। উদ্দীপকে জনাব ইমতিয়াজ সামান্য পুঁজি নিয়ে নিজ গ্রামে মুরগির খামার গড়ে তোলেন।

তাছাড়া তিনি একটি সবজির বাগান করে সেখান থেকেও কিছু আয়ের ব্যবস্থা করেন। অর্থাৎ জনাব ইমতিয়াজ মুরগির খামার ও সবজির চাষ করে নিজের কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করেন। তাই বলা যায়, জনাব ইমতিয়াজের কাজটি আত্মকর্মসংস্থানমূলক কাজ।

ঘ. জনাব ইমতিয়াজ আত্মকর্মসংস্থানকে পেশা হিসেবে নেওয়ার সিদ্ধান্ত সঠিক ছিল। বাংলাদেশে জনসংখ্যা বৃদ্ধির হার অত্যন্ত বেশি। কিন্তু সেই তুলনায় সরকারি ও বেসরকারি ক্ষেত্রে চাকরির সুযোগ খুবই সীমিত। তাই বাংলাদেশে শিক্ষিত বেকারের সংখ্যা অনেক বেশি।

এসব শিক্ষিত বেকার যুবকদের বেকারত্ব লাঘবে আত্মকর্মসংস্থানমূলক কাজের কোনো বিকল্প নেই। একজন বেকার যুবক নিজস্ব স্বল্প মূলধন নিয়ে উদ্যোগ গ্রহণ করে কর্মসংস্থান সৃষ্টি করতে পারে। তাই চাকরির জন্য বসে না থেকে নিজেই কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করা উচিত। উদ্দীপকের জনাব ইমতিয়াজও তাই করেছেন।

তিনি সামান্য পুঁজি নিয়ে নিজ গ্রামে মুরগির খামার গড়ে তোলেন। তাছাড়াও তিনি একটি সবজি বাগানও করেন। সেখান থেকে তিনি আয়ের ব্যবস্থা করেন। এভাবে জনাব ইমতিয়াজ নিজের কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করেন।
সুতরাং, জনাব ইমতিয়াজের আত্মকর্মসংস্থানকে পেশা হিসেবে নেওয়ার সিদ্ধান্ত যুক্তিযুক্ত হয়েছে।

সৃজনশীল প্রশ্ন
ডিগ্রি পাস আরিফ ভালো কোনো চাকরি লাভে ব্যর্থ হয়ে উপজেলা যুব উন্নয়ন কার্যালয় থেকে কাপড় সেলাইয়ের ওপর প্রশিক্ষণ নেন। প্রশিক্ষণ শেষে নিজস্ব চিন্তা ও বুদ্ধিমত্তাকে কাজে লাগিয়ে ৩ জন কর্মচারী নিয়ে রাজধানীর নিউমার্কেট এলাকায় একটি টেইলারির দোকান দেন। ব্যবসায়ে সাফল্যের কারণে ২ বছরের মধ্যে পল্টন ও গুলিস্তানে আরও দুটি শাখা চালু করেন এবং ১২ জন কর্মচারী নিয়োগ দেন।

ক. বাংলাদেশে মোট কর্মহীন লোকের সংখ্যা কত?
খ. যুব উন্নয়ন অধিদপ্তর কেন যুবকদের প্রশিক্ষণ ও ঋণদান করে?

গ. আরিফের কাজটির ধরন বর্ণনা কর।
ঘ. বেকারত্ব দূরীকরণে আরিফের সিদ্ধান্তের যৌক্তিকতা মূল্যায়ন কর।

সৃজনশীল প্রশ্নের উত্তর
ক. বাংলাদেশে মোট কর্মহীন লোকের সংখ্যা ২৬ লক্ষ।

খ. যুব উন্নয়ন অধিদপ্তর বেকার জনগোষ্ঠীকে দক্ষ করে গড়ে তোলার জন্য প্রশিক্ষণ প্রদান করে। যুবকরা যাতে নির্ভুলভাবে এবং সফলভাবে আত্মকর্মসংস্থান করে স্বাবলম্বী হতে পারে সেজন্য যুব উন্নয়ন অধিদপ্তর প্রশিক্ষণ প্রদান করে। পাশাপাশি যোগ্যতাসম্পন্ন আত্মবিশ্বাসী এবং কঠোর পরিশ্রমী যুবকদের ঋণ দান করার মাধ্যমে পুঁজির সংস্থান করে।

গ. আরিফের কাজটি আত্মকর্মসংস্থানমূলক কাজের অন্তর্ভুক্ত। নিজের দক্ষতা ও গুণাবলি দ্বারা নিজেই নিজের কর্মসংস্থান করাই আত্মকর্মসংস্থান। অর্থাৎ নিজস্ব পুঁজি অথবা ঋণ করা স্বল্প সম্পদ, নিজস্ব চিন্তা, জ্ঞান, বুদ্ধিমত্তা ও দক্ষতাকে কাজে লাগিয়ে ন্যূনতম ঝুঁকি নিয়ে আত্মপ্রচেষ্টায় জীবিকা অর্জনের ব্যবস্থাকে আত্মকর্মসংস্থান বলে।

উদ্দীপকের আরিফ চাকরি লাভে ব্যর্থ হয়ে যুব উন্নয়ন কার্যালয় থেকে কাপড় সেলাইয়ের প্রশিক্ষণ নেন। প্রশিক্ষণ শেষে নিজস্ব চিন্তা ও বুদ্ধিমত্তাকে কাজে লাগিয়ে নিউমার্কেট এলাকায় টেইলারির দোকান দেন

এবং স্বল্প সময়ের মধ্যে ব্যবসায়ে সাফল্য অর্জন করেছেন। যেহেতু আরিফ নিজস্ব চিন্তা ও বুদ্ধিমত্তা কাজে লাগিয়ে টেইলারি দোকানটি দিয়েছে এবং নিজের কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করেছেন। সুতরাং, আরিফের কাজটি একটি আত্মকর্মসংস্থানমূলক কাজ।

ঘ. বেকারত্ব দূরীকরণে আরিফের সিদ্ধান্তটি অত্যন্ত যুক্তিসংগত।
বাংলাদেশ একটি উন্নয়নশীল দেশ। এদেশের ২৬ লক্ষ লোক কর্মহীন। বাংলাদেশ সরকার এবং অন্যান্য বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের পক্ষে এরূপ লক্ষ লক্ষ বেকারের চাকরির ব্যবস্থা করা সম্ভব নয়। তাই এদেশে আত্মকর্মসংস্থানমূলক পেশার কোনো বিকল্প নেই।

আত্মকর্মসংস্থানমূলক পেশায় নিয়োজিত হওয়ার মাধ্যমে এদেশের বেকার যুবকরা নিজের ও দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নকে ত্বরান্বিত করতে পারে। উদ্দীপকে আরিফ সামান্য পুঁজি ও প্রশিক্ষণ নিয়ে নিজস্ব চিন্তা ও বুদ্ধিমত্তা কাজে লাগিয়ে আত্মকর্মসংস্থানমূলক পেশায় নিয়োজিত হওয়ার মাধ্যমে নিজের বেকারত্ব দূর করেছেন।

তাছাড়া তিনি প্রথমে ২ জন এবং পরে ১২ জন কর্মচারীর কর্মক্ষেত্র সৃষ্টি করেছেন। এর মাধ্যমে তিনি যেমন নিজের জীবন উন্নত করেছেন তেমনি দেশের বেকারত্ব হ্রাসে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছেন।

আরিফের সাফল্য দেখে দেশের অনেক বেকার যুবক এগিয়ে আসলে দেশের আর্থসামাজিক অবস্থার পরিবর্তন ঘটবে।
সুতরাং, বেকারত্ব দূরীকরণে আরিফের সিদ্ধান্তটি যথোপযুক্ত ছিল।

ANSWER SHEET

যুক্ত হোন আমাদের ইউটিউব চ্যানেলে এখানে ক্লিক করুন এবং আমাদের সাথে যুক্ত থাকুন ফেইজবুক পেইজে এখানে ক্লিক করে।

এগুলো দেখুন

SSC ফ্রি PDF ব্যবসায় উদ্যোগ: MCQ উত্তরসহ

SSC ফ্রি PDF ব্যবসায় উদ্যোগ: MCQ উত্তরসহ

SSC ফ্রি PDF ব্যবসায় উদ্যোগ: MCQ উত্তরসহ বহুপদী সমাপ্তিসূচক বহুনির্বাচনি প্রশ্নোত্তর ১. রাষ্ট্রীয় ব্যবসায় যে …

Leave a Reply

Your email address will not be published.